সর্বশেষ সংবাদ

বিএনপি পুলিশের সংঘর্ষে রণক্ষেত্র ফেনী

আবদুল্যাহ রিয়েল, ফেনী প্রতিনিধি: ফেনীতে বিএনপির পদযাত্রা কর্মসূচির শেষ দিকে পুলিশের সাথে সংঘর্ষে শহরের শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সড়ক রণক্ষেত্রে পরিনত হয়। এতে আহত হয়েছে অর্ধশত। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা ওই সড়কের বিভিন্ন শপিং মলে ব্যাপক ভাঙচুর চালায় এবং বিএনপি অধ্যুষিত ইসলামপুর রোডের কয়েকটি দোকান ও গাড়ি ভাঙচুর করে। মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ, প্রত্যক্ষদর্শী ও বিএনপি সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার বিকেল ৩টার দিকে ফেনী জেলা বিএনপির আহ্বায়ক শেখ ফরিদ বাহার ও সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলালের নেতৃত্বে হাজার হাজার নেতাকর্মী শহরের ট্রাঙ্ক রোড়ের দাউদপুর ব্রিজ-সংলগ্ন স্থান থেকে পদযাত্রা শুরু হয়। পদযাত্রাটি শহরের ট্রাঙ্ক রোডের খেজুর চত্বরে এলে পুলিশ শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সড়কের দিকে পাঠিয়ে দেয়। পরে পদযাত্রার অগ্রভাগ ইসলামপুর রোড অতিক্রম করে তাকিয়া রোডের দিকে চলে যায়। পেছনের অংশটি ট্রাঙ্ক রোডের খেজুর চত্বরে থাকাকালে ইসলামপুর রোডের মাথায় একদল বিএনপি কর্মীর সাথে পুলিশের বাকবিতণ্ডা হয়। ধাক্কাধাক্কির একপর্যায়ে ইটপাটকেল ছুড়লে সংঘর্ষ বেধে যায়। এসময় পুলিশ কয়েক রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোঁড়ে। শুরু হয় পুলিশ-বিএনপির ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া। খবর পেয়ে পুলিশ সুপার জাকির হাসানসহ পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন। পুলিশের গুলি ও হামলায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে বলে বিএনপি দাবি করেছে।

গুলিবিদ্ধ ও আহত বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ফেনী পৌর ছাত্রদলের সদস্য সচিব ইব্রাহিম হোসেন পাটোয়ারি ইবু, ফাজিলপুরের তারেক, কামরান, তাঁতি দলের জলিলুর রহমান, পাঁছগাছিয়া ইউনিয়নের আবু আহমেদ, একই ইউনিয়নের খুরশিদ, মুক্তার হোসেন, সৈকত, জাকির আহমদ, ফরিদ, শাহিন, কামাল উদ্দিন, সোবহান আলী আরিয়ান, সামছুল আলম ছুট্টু, সোহেল, সম্রাট, আরিফ, মহি উদ্দিন, মোশারফ হোসেন, সাজেদুল ইসলাম নিশান, ফরহাদ, নুর হোসেন, আবুল বশর, শাহ নেয়াজ, ফারুক, রাসেল, শহিদ, সাইফুল ইসলাম, শাহ আলম, হাসান, বদিউল আলম, আরমান হোসেন, আল আমিন, জিহাদ ও সাইদুল হক, কামাল হোসেন, শাহেদ, আরমান, তাজুল ইসলাম, শাহ আলম, আবদুল হালিম, সাজু, মাহবুবুল হক সুমন ও আবু তৈয়বের নাম জানা গেছে। পুলিশের দাবি, বিএনপির হামলায় কয়েকজন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছে। সংঘর্ষের সময় বেশ কয়েকটি গাড়ি ভাঙচুর করা হয়েছে।

পুলিশের সামনে আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সড়কের সুলতান চক, গ্রিন টাওয়ার, সাউথ ইস্ট ব্যাংক, প্রিমিয়ার ব্যাংক, বাংলা হোটেল, আল আরাফা ব্যাংক, কমপেক্ট ডায়াগনস্টিক সেন্টার, জিলান ট্রাভেলসে ভাঙচুর চালায়। এছাড়া অজ্ঞাত দুর্বৃত্তদের ছোঁড়া ইটপাটকেলে প্রেসক্লাবের জানালার গ্লাস ভেঙে গেছে। সংঘর্ষের সময় দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে ইটপাটকেলের আঘাতে মানবজমিন প্রতিনিধি নাজমুল হক শমীম, মোহনা টিভি প্রতিনিধি তোফায়েল আহমেদ নিলয় ও দৈনিক ফেনী প্রতিবেদক মুস্তাফিজ মুরাদ, ফেনীর তালাশ প্রতিনিধি এম এ আকাশসহ কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মী আহত হয়েছেন। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব আলাল উদ্দিন আলাল অভিযোগ করেন, পুলিশ বিনা উস্কানিতে বিএনপি নেতাকর্মীদের লাঠিচার্জ করে। একপর্যায়ে গুলি করলে শতাধিক নেতাকর্মী গুলিবিদ্ধ হয়। পুলিশের সাথে থেকে সরকার দলীয় ক্যাডাররা ব্যাপক তাণ্ডব চালায়।

পুলিশ সুপার জাকির হাসান বলেন, বিএনপি নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে ইসলামপুর রোড় অতিক্রম করতে চেয়েছিল। সেখানে পুলিশ তাদের সামনে আগাতে না দিলে তারা পুলিশের ওপর ককটেল বিস্ফোরণ, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও হামলা করে। এতে পুলিশ সদস্য আহত হয়। আত্মরক্ষায় পুলিশ টিয়ারশেল, শর্টগানের গুলি ও রাবার বুলেট ছোঁড়ে। তবে তাৎক্ষণিক গুলির সংখ্যা জানাতে পারেননি তিনি।

এসএইচ

আরও পড়ুন

তীব্র তাপপ্রবাহে বেঁকে গেছে রেললাইন, ঢালা হচ্ছে পানি

তীব্র তাপপ্রবাহে ঈশ্বরদীতে বেঁকে গেছে রেললাইন। শুক্রবার দুপুরে ঈশ্বরদী বাইপাস রেলওয়ে ষ্টেশনের কাছে রেললাইনের পাত বেঁকে যায়। এতে করে রাজশাহীগামী কপোতাক্ষ ট্রেন প্রায় এক...

মহাসড়কে ইফতার সামগ্রী বিতরণ করলেন ইউএনও

মো. সানোয়ার হোসেন, মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: তৈরিকৃত ইফতার সামগ্রী বিতরণ করেছেন টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শেখ নূরুল আলম। সোমবার (৮ এপ্রিল) ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের...

সেরা পঠিত