লিটারে ১২ টাকা কমলো পাম তেলের দাম, কমেছে চিনির দামও

দেশে খোলা পাম তেল লিটারে ১২ টাকা এবং খোলা চিনির দাম কেজিতে ৬ টাকা কমানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এ ঘোষণা দিয়েছে।

এত দিন প্রতি লিটার ভালো মানের (সুপার) পাম তেল সর্বোচ্চ ১৪৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছিল। এখন তা ১৩৩ টাকায় পাওয়া যাবে।

অন্যদিকে প্রতি কেজি খোলা চিনি বিক্রি হচ্ছিল ৯০ টাকায়। এখন তা পাওয়া যাবে ৮৪ টাকায়। আর কেজিপ্রতি প্যাকেটজাত চিনি বিক্রি হচ্ছিল ৯৫ টাকায়। এখন সেটা মিলবে ৮৯ টাকায়।

মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পাম তেল সুপার খোলা প্রতি লিটার মিলগেট মূল্য ১২৮ টাকা, পরিবেশক মূল্য ১৩০ টাকা এবং খুচরা মূল্য সর্বোচ্চ ১৩৩ টাকা নির্ধারণ করা হলো।

পরিশোধিত খোলা চিনি এক কেজি মিলগেট মূল্য ৭৯ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৮১ টাকা এবং খুচরা মূল্য ৮৪ টাকা।

প্যাকেট চিনি এক কেজি মিলগেট মূল্য ৮২ টাকা, পরিবেশক মূল্য ৮৪ টাকা এবং খুচরা মূল্য ৮৯ টাকা।

রোববার (২৫ সেপ্টেম্বর) থেকে নতুন এ দাম কার্যকর হবে।

এর আগে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে পাম তেলের দাম লিটারে ১২ টাকা কমানোর সুযোগ আছে বলে সুপারিশ করে বাংলাদেশ ট্যারিফ কমিশন। চিনির দামও কমিয়ে আনার পরামর্শ দেয় এই প্রতিষ্ঠান।

ট্যারিফ কমিশন থেকে দেয়া সুপারিশে বলা হয়, বিশ্ববাজারে সয়াবিন তেলের দামে তেমন প্রভাব পড়েনি। কিন্তু কমেছে পাম তেলের দাম। তাই এই তেলের দাম স্থানীয় বাজারে কমানোর সুযোগ আছে। তবে সয়াবিন তেল যে দামে বিক্রি হচ্ছে তা যৌক্তিক। পাম তেলের দাম বর্তমানে ১৪৫ টাকা । এই তেলের দাম লিটারে অন্তত ১২ টাকা কমিয়ে ১৩৩ টাকা নির্ধারণ করা যেতে পারে।

চিনি বিষয়ে ট্যারিফ কমিশন থেকে পাঠানো সুপারিশে বলা হয়, প্রতি কেজি খোলা চিনি ভোক্তাপর্যায়ে খুচরা মূল্য ৮৪ টাকা। আর প্যাকেটজাত চিনির কেজিপ্রতি দাম হওয়া উচিত ৮৮ টাকা।

আরও পড়ুন