ঢাকা    ৭ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২২শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

অবশেষে নিত্যপণ্যে লাভের হার বেঁধে দিল সরকার, অমান্য করলে শাস্তি

প্রকাশিত: ৭:০৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৫, ২০২১

অবশেষে নিত্যপণ্যে লাভের হার বেঁধে দিল সরকার, অমান্য করলে শাস্তি

নজর২৪ ডেস্ক- ধান, চাল, ডাল, পেঁয়াজ, রসুন, ডিম, আটা, ময়দা, সবজিসহ অন্যান্য কৃষিপণ্যের উৎপাদক, পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে লাভের সর্বোচ্চ সীমা বেঁধে দিয়েছে সরকার। নির্ধারিত হারের থেকে বেশি লাভে এসব পণ্য বিক্রি করলে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জেল-জরিমানা করা হবে, এমন বিধান রেখে কৃষি বিপণন বিধিমালা জারি করেছে কৃষি মন্ত্রণালয়।

 

কৃষি বিপণন আইনের ক্ষমতাবলে এই বিধিমালা জারি করা হয়েছে। কৃষি উপকরণ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করলে বা সরকার-নির্ধারিত হারের বেশি মুনাফা করলে সর্বোচ্চ এক বছরের কারাদণ্ড বা ১ লাখ টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ডের বিধান রয়েছে কৃষি বিপণন আইনে। দ্বিতীয়বার একই অপরাধ করলে সাজা হবে দ্বিগুণ।

 

বিধিমালা অনুযায়ী, ধান, চাল, গম, ভুট্টা, পাট, চা, তুলা, তামাক, ডাল, কালাই, সব ধরনের মাছ, পেঁয়াজ, রসুন, আদা, হলুদ, কাঁচা মরিচ, শুকনা মরিচ, ধনিয়া, কালোজিরা, ডিম, দুগ্ধ ও দুগ্ধজাত দ্রব্য, পান, সুপারি, সব ধরনের ভুসি, ডাব, নারিকেল, চিড়া, মুড়ি, সুজি, সেমাই, আটা, ময়দা, কৃষিপণ্যের রস ও জুস, আচার, বেসন, চিপস এবং প্রক্রিয়াজাত পণ্য উৎপাদক পর্যায়ে ৩০ শতাংশ, পাইকারিতে ১৫ শতাংশ ও খুচরায় সর্বোচ্চ ২৫ শতাংশ হারে মুনাফা করা যাবে।

 

রাই, সরিষা, তিল, তিসি, বাদাম, নারকেল, রেঢ়ি, সূর্যমুখী, সয়াবিনসহ তেলবীজে উৎপাদক পর্যায়ে ৩০ শতাংশ, পাইকারিতে ১৫ শতাংশ ও খুচরায় সর্বোচ্চ ৩০ এবং আখ ও গুড় বিক্রিতে উৎপাদক পর্যায়ে ৩০ শতাংশ, পাইকারিতে ১৫ শতাংশ ও খুচরায় ৩০ শতাংশ লাভ করা যাবে।

 

এ ছাড়া সব ধরনের তাজা ও শুকনা ফল উৎপাদক পর্যায়ে ৩০ শতাংশ, পাইকারিতে ২০ শতাংশ ও খুচরায় ৩০ শতাংশ; তাজা ও শুকনা ফুল, ক্যাকটাস, অর্কিড, পাতাবাহার এবং আলুসহ সব ধরনের শাকসবজি উৎপাদক পর্যায়ে ৪০ শতাংশ, পাইকারিতে ২৫ শতাংশ ও খুচরায় ৩০ শতাংশ লাভ করা যাবে।

 

আর পেঁয়াজ, রসুন, আদা, হলুদ ও কাঁচা মরিচ উৎপাদক পর্যায়ে ৪০ শতাংশ, পাইকারিতে ২০ শতাংশ ও খুচরায় সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ লাভ করা যাবে বলে বিধিমালায় বলা হয়েছে।

 

কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর এত দিন সময়ে সময়ে কৃষিপণ্যের দাম নির্ধারণ করে আসছিল। এখন আইনি কাঠামোর মধ্যে কৃষিপণ্যে মুনাফার সর্বোচ্চ হার বেঁধে দেওয়া হলো। এর ফলে কেউ চাইলেই কোনো কৃষিপণ্যের দাম অতিরিক্ত হারে বাড়াতে পারবেন না বলে মনে করছেন কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। এই বিধিমালা কার্যকর হওয়ায় বাজারের ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সুপারশপগুলোতেও সরকার-নির্ধারিত হারের বেশি মুনাফায় কৃষিপণ্য বিক্রি করা যাবে না।

 

বিধিমালায় বলা হয়েছে, বাজারে প্রকাশ্য বা সহজে দৃষ্টিগোচর হয় এমন স্থানে কৃষিপণ্য ও কৃষি উপকরণের পাইকারি ও খুচরা বিক্রয় মূল্য প্রদর্শন করতে হবে। এ ছাড়া এসব পণ্যের কেনা দামের মূল রসিদও দোকান বা ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে সংরক্ষণ করতে হবে।

 

একই সঙ্গে কৃষি বিপণন আইন অনুযায়ী, কৃষিপণ্য ও কৃষি উপকরণের রপ্তানিকারক, আমদানিকারক, ডিলার, মিলার, সরবরাহকারী, প্রক্রিয়াজাতকারী এবং চুক্তিবদ্ধ ব্যবস্থার সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে লাইসেন্স নেওয়ার ফি নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে বিধিমালায়।

 

কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মোহাম্মদ ইউসুফ বিদেশে থাকায় তার সঙ্গে এ বিষয়ে কথা বলা যায়নি।

 

অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (বাজার সংযোগ-১) মো. মজিবর রহমান বলেন, ‘আমরা প্রতিদিন কৃষিপণ্যের যৌক্তিক দাম নিয়ে একটা প্রতিবেদন প্রকাশ করি। আমাদের লোকজন বাজার থেকে কৃষিপণ্যের পাইকারি দাম কালেকশন করেন। এরপর প্রতিটি পণ্যের ক্ষেত্রে কস্ট কত হতে পারে, এর মধ্যে পণ্যের দাম ছাড়াও দোকান ভাড়া, বিদ্যুৎ খরচ, শ্রমিকের মজুরি থাকে। এর সঙ্গে মুনাফা যোগ করে পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে যৌক্তিক দাম নির্ধারণ করি। মুনাফার হারটা মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন দেয়া, এটা মাঝে মাঝে পরিবর্তন হয়।’

 

তিনি বলেন, ‘এখন কৃষি বিপণন আইনের অধীনে বিধিমালায় মুনাফার হারটা নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। এখন এটাই চূড়ান্ত।’

 

কেউ এ নির্ধারিত হারের বেশি মুনাফা নিলে সরকার আইনানুগ ব্যবস্থা নিতে পারবে বলেও জানান কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের এই কর্মকর্তা।

 

লাইসেন্স ফি নির্ধারণ

আইন অনুযায়ী, কৃষি পণ্য ও কৃষি উপকরণের ব্যবসা ও আমদানি-রপ্তানি করতে কৃষি বিপণন অধিদপ্তরের কাছ থেকে লাইসেন্স নিতে হবে। বিধিমালায় নতুন লাইসেন্স ও লাইসেন্স নবায়ন ফি বেঁধে দেয়া হয়েছে।

 

হিমাগারের নতুন লাইসেন্স ফি এক হাজার ৫০০ ও নবায়ন ফি ৮০০ টাকা। চুক্তিবদ্ধ চাষ ও বিপণন ব্যবস্থার সঙ্গে সম্পৃক্ত ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান নতুন লাইসেন্সের জন্য এক হাজার ২০০ টাকা দিতে হবে, নবায়ন ফি ৬০০ টাকা। কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকারী প্রতিষ্ঠান এবং বড় গুদাম, রপ্তানিকারক, আমদানিকারক, সরবরাহকারীর নতুন লাইসেন্স ফি এক হাজার ২০০, লাইসেন্স নবায়ন ফি ৬০০ টাকা।

 

কুল চেম্বার, ছোট গুদাম, পাইকারি বিক্রেতা, আড়তদার, মজুতদার, ডিলার, মিলার, কমিশন এজেন্ট বা ব্রোকারের নতুন লাইসেন্স ফি এক হাজার টাকা, নবায়ন ফি ৫০০ টাকা।

 

ব্যাপারী, ফড়িয়াদের নতুন লাইসেন্স ফি ৩০০ ও নবায়ন ফি ২০০ এবং ওজনদার, নমুনা সংগ্রহকারীদের নতুন লাইসেন্স ফি ১০০ ও নবায়ন ফি ৫০ টাকা।

 

আইনে জাতীয় কৃষি বিপণন সমন্বয় কমিটি, জেলা কৃষি বিপণন সমন্বয় কমিটি, উপজেলা কৃষি বিপণন সমন্বয় কমিটি এবং বাজারভিত্তিক ব্যবস্থাপনা কমিটি গঠন করার কথা বলা ছিল। বিধিতে কমিটি গঠন এবং কার্যাবলি নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে।