ঢাকা    ২০শে এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৭ই বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

তৈরি হচ্ছে ১০টি ‘মডেল গ্রাম’, থাকবে শহরের সব সুবিধা

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৯, ২০২০

তৈরি হচ্ছে ১০টি ‘মডেল গ্রাম’, থাকবে শহরের সব সুবিধা

নজর২৪ ডেস্ক- গ্রামের আয় বৃদ্ধি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে উন্নত গ্রামীণ জীবন যাপনের সুযোগ এবং গ্রাম থেকে শহরমুখী স্রোত হ্রাস করতে ‘বঙ্গবন্ধু মডেল ভিলেজ’ প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ প্রকল্পের আওতায় দেশের ১০টি গ্রামের মানুষ শহরের সব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।

 

জানা গেছে, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে তার প্রতি সর্বোচ্চ সম্মান প্রদর্শনের অংশ হিসেবে সমবায় অধিদফতর বঙ্গবন্ধুর সমবায় গ্রাম ধারণা ও বর্তমান সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারের বিশেষ অঙ্গীকার ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ ধারণায় গ্রামের বৈশিষ্ট সমুন্নত রেখে ‘বঙ্গবন্ধু মডেল ভিলেজ’ প্রকল্পের প্রস্তাবনা তৈরি করেছে।

 

এর মাধ্যমে গ্রামের বৈশিষ্ট সমুন্নত রেখে গ্রামীণ সম্পদের সুষ্ঠু ও সুষম ব্যবহার নিশ্চিত করা, গ্রামীণ কর্মসংস্থান সৃষ্টি, কৃষির আধুনিকায়ন ও যান্ত্রিকীকরণের মাধ্যমে উৎপাদন বৃদ্ধি, জৈব জ্বালানির ব্যবহার, যোগাযোগ ও বাজার অবকাঠামো সৃষ্টি, স্বাস্থ্য-শিক্ষার মানোন্নয়নের লক্ষ্যে কমিউনিটির সচেতনতা বৃদ্ধি, তথ্য প্রযুক্তিগত অবকাঠামো সৃষ্টির মাধ্যমে সকল সেবা সহজলভ্য করা হবে।

 

দেশের ১০ জেলার ১০ উপজেলার ১০ গ্রামের গড়ে পাঁচ হাজার জন করে মোট ৫০ হাজার মানুষ প্রকল্পটির উপকারভোগী হবেন। গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়া, ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী, জামালপুরের মাদারগঞ্জ, কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ, সুনামগঞ্জের দক্ষিণ সুনামগঞ্জ, যশোরের মনিরামপুর, রংপুরের মিঠাপুকুর, রাজশাহীর তানোর, বরিশালের গৌরনদী উপজেলায় এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হবে।

 

সমবায় অধিদফতরের কর্মকর্তারা জানান, এ প্রকল্পটির মাধ্যমে গ্রামীণ অবকাঠামোতে কিছু ইতিবাচক পরিবর্তন আসবে। এর ফলে আদর্শমানের উন্নত গ্রাম প্রতিষ্ঠা, গ্রামীণ অতি দারিদ্র্যের হার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনা, গ্রামের সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করা, শিক্ষিত, সচেতন ও দায়িত্বশীল নাগরিক সৃষ্টি, গ্রামের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও অর্থনৈতিক জাগরণ সৃষ্টি হবে।

 

আর উপজেলা পর্যায়ের সকল দফতরের সরকারি সেবা গ্রামে পৌঁছে দিয়ে সেখানকার জনগণকে উদ্বুদ্ধ করা হবে। প্রকল্প কার্যক্রমে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করানোর লক্ষ্যে সংসদ সদস্য, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, উপজেলার বিভিন্ন দফতর ও উপকারভোগীদের সমন্বয়ে বিভিন্ন কমিটি কাজ করবে।

 

গ্রামে যেসব পরিবর্তন আসবে

 

এ প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে গ্রামের প্রতি ইঞ্চি জমি আবাদের আওতায় আসবে অর্থাৎ এক ইঞ্চি জমিও অনাবাদি থাকবে না। রাস্তার ধার, নদীর পাড়, মাঠ এবং বাড়ির আঙিনায় আবাদ করা হবে। কোনো পুকুর মাছ চাষহীন থাকবে না। যৌথপদ্ধতিতে চাষাবাদ হবে। কৃষিতে যন্ত্রের ব্যবহারের প্রচলন থাকবে। পরিবেশবান্ধব ও পানি সাশ্রয়ী সেচ ব্যবস্থা থাকবে।

 

কীটনাশক ও রাসায়নিক সারের পরিমিত ব্যবহার থাকবে এবং জৈব বালাইনাশকের ব্যবহার অনুশীলন করা হবে। কৃষি বহুমুখীকরণ চর্চা থাকবে। কৃষিপণ্যের বাজার নেটওয়ার্ক থাকবে। ফসলের সময়ের বাইরে (অফ-সিজন) কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে পশুপালন, ক্ষুদ্র ব্যবসা ও কুটির পণ্য উৎপাদন ব্যবস্থা থাকবে।

 

এছাড়া গ্রামীণ অতি দারিদ্র্য ৬ শতাংশে নেমে আসবে। গ্রামে অপরাধ প্রবণতা উল্লেখযোগ্য হারে কমবে। থাকবে না মাদক গ্রহণকারী ও মাদক কারবারি। নিষিদ্ধ থাকবে বাল্যবিয়ে ও যৌতুক প্রথা। বিরোধ নিষ্পত্তি করা হবে সালিশ-মীমাংসার মাধ্যমে। কমে যাবে মামলা-মোকদ্দমার হার। গ্রামের লোক পাবে শতভাগ চিকিৎসা সুবিধা। স্কুলে ভর্তির হার শতভাগ এবং ঝরে পড়ার হার কমবে উল্লেখযোগ্য হারে।

 

নারীর প্রতি সহিংসতা থাকবে না। কোনো শিশু ও নারী পুষ্টিহীন থাকবে না। থাকবে ঘরে ঘরে বিদ্যুতের ব্যবস্থা। গ্রামের জনগণ তথ্যপ্রযুক্তিগত সুবিধা লাভ করবে। জনগোষ্ঠী উজ্জীবিত থাকবে বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়। অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্ধুদ্ধকরণের মাধ্যমে সামাজিক সংহতি ফিরিয়ে আনা হবে। পরিবেশ সুরক্ষায় কার্যক্রম গ্রহণের মাধ্যমে শতভাগ পরিবেশবান্ধব গ্রাম হিসেবে আবির্ভূত হবে প্রকল্পভুক্ত ১০ গ্রাম।

 

এ প্রকল্পের বিষয়ে পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্য গণমাধ্যমকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলেছেন—গ্রামকে শহরের পর্যায়ের নাগরিক সুবিধা দেয়া হবে। আমাদের মূল কথা হলো, বঙ্গবন্ধুর যে ভাবনা ছিলে, সেটিকে লক্ষ্য করে আমাদের নির্বাচনী ইশতেহার ছিল, আমরা গ্রামকে উন্নত শহরের সুবিধাগুলো দেবো। সেটিকে মাথায় রেখে আমরা একটি টিম করে দিয়েছি, তারা এগুলো তৈরি করে আমাদের কাছে নিয়ে আসবে।

 

প্রথমে যে ১০ গ্রাম পাইলট প্রকল্পের আওতাভুক্ত হবে, সেখানে শহরের সুবিধাগুলো গ্রামে বসে পাবে। যেমন শিক্ষার জন্য স্কুলগুলো মানসম্পন্ন হবে, ইন্টারনেট সংযোগ দিয়ে দেবো, যেন তারা আউটসোর্সিংয়ের কাজ করতে পারে। প্রতিটি বাড়িতে সেনিটারি ব্যবস্থা করে দেবো, শতভাগ বিদ্যুৎ দেবো (যেটি এখনো অনেকক্ষেত্রে আছে), কমিউনিটি সেন্টার হবে, যেখানে বসে গ্রামের লোকরা উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করবে। এমন অনেক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হবে।’