ঢাকা    ১৫ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ২রা বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

এবার ৯ মাসেই ‘রেকর্ড পরিমাণ’ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা

প্রকাশিত: ৯:৩৫ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১, ২০২১

এবার ৯ মাসেই ‘রেকর্ড পরিমাণ’ রেমিট্যান্স পাঠিয়েছে প্রবাসীরা

নজর২৪ ডেস্ক- মহামারি করোনাভাইরাসের মধ্যেও প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সের ইতিবাচক ধারা অব্যাহত রয়েছে।

 

চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রথম নয় মাসে (জুলাই-মার্চ) এক হাজার ৮৬০ কোটি ৩৮ লাখ (১৮.৬০ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা। এই অংক গত অর্থবছরের পুরো সময়ের (জুলাই-জুন) চেয়ে ২ দশমিক ২ শতাংশ বেশি। আর গত অর্থবছরের জুলাই-মার্চ সময়ের চেয়ে ৩৫ শতাংশ বেশি।

 

২০১৯-২০ অর্থবছরে এক হাজার ৮২০ কোটি ৫০ লাখ (১৮.২০ বিলিয়ন) ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে।

 

গত মার্চে ১৯১ কোটি ৬৬ লাখ ডলার পাঠিয়েছেন প্রবাসীরা, যা গত বছরের মার্চের চেয়ে ৫০ দমিক ১৭ শতাংশ বেশি। ২০২০ সালের মার্চে ১২৭ কোটি ৬২ লাখ ডলার এসেছিল।

 

করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেই অর্থবছরের প্রথম মাস গত বছরের জুলাইয়ে ২ দশমিক ৬ বিলিয়ন ডলারের রেমিট্যান্স এসেছিল, যা এক মাসের হিসাবে এ পর্যন্ত সর্বোচ্চ।

 

মহামারির কারণে রেমিট্যান্স কমে যাবে বলে আশঙ্কা করা হরেও বাস্তবে তা ঘটেনি। মহামারির আঁচ বিশ্বের অর্থনীতিতে লাগার পর গত বছরের এপ্রিল মাসে রেমিট্যান্স কমলেও এরপর আবার বেড়েছে।

 

গত আগস্টে এসেছিল ১৯৬ কোটি ৩৪ লাখ ডলার। সেপ্টেম্বরে আসে ২১৫ কোটি ১০ লাখ ডলার। অক্টোবরে এসেছিল ২১১ কোটি ২৪ লাখ ডলার। নভেম্বরে আসে ২০৭ কোটি ৮৭ লাখ ডলার। ডিসেম্বরে আসে ২০৫ কোটি ডলার।

 

এ বছরের প্রথম মাস জানুয়ারিতে ১৯৬ কোটি ২৬ লাখ ডলার এসেছিল। তবে ফেব্রুয়ারি মাসে তা কমে ১৭৮ কোটি ডলারে নেমে আসে।

 

গত বছরের মার্চে ১২৭ কোটি ৬২ লাখ ডলার রেমিট্যান্স এসেছিল দেশে। এ হিসাবে এই মার্চে গত বছরের মার্চের চেয়ে রেমিট্যান্স বেড়েছে ৫০ দশমিক ১৭ শতাংশ।

 

এদিকে সময়োপযোগী ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনাসহ বিভিন্ন সংস্কারমুখী পদক্ষেপের কারণে রেমিট্যান্স বাড়ছে এবং বাড়তেই থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

 

বৃহস্পতিবার (১ এপ্রিল) করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যেও রেকর্ড পরিমাণ রেমিট্যান্সের বিষয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় মন্ত্রী এ মন্তব্য করেন।

 

মুস্তফা কামাল বলেন, ‘প্রবাসী আয়ের এই ঊর্ধ্বমুখী ধারা অব্যাহত রাখতে সরকার নানামুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। এর মধ্যে অন্যতম প্রবাসী আয় পাঠানোর নিয়ামকানুন সহজ করে দেয়া, সময়োপযোগী ২ শতাংশ নগদ প্রণোদনা। এছাড়া আরও বিভিন্ন সংস্কারমুখী গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপের প্রভাবে রেমিট্যান্স বাড়ছে।’

 

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের এ অর্জন দিন দিন বেড়েই চলছে, আমাদের প্রত্যাশা এটি আরও বাড়বে। এ বিষয়ে সরকারের প্রতি মানুষের আস্থা ফিরে এসেছে। কাউকে হয়রানি করা হয় না, সময় মতো এর উপকারভোগীর হাতে পৌঁছে যায়। যে কারণে এটি দিন দিন বেড়েই চলছে এবং বাড়তেই থাকবে, ইনশাআল্লাহ।’