সর্বশেষ সংবাদ

এখন পদ্মাসেতুর নাম শুনলেই ভয় হয়: রিজভী

ঢাকা: পদ্মা সেতুর নাম শুনলেই এখন ভয় হয় বলে জানিয়েছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে রিজভী বলেন, আপনার হিংসাশ্রয়ী আচরণ তো ইতোমধ্যে প্রমাণিত হয়েছে। আপনি একজন সাবেক প্রধানমন্ত্রীকে পদ্মা সেতু থেকে টুস করে ফেলে দেবেন? নোবেল বিজয়ী ব্যক্তিকে চুবাবেন। পদ্মা সেতুর নাম শুনলেই এখন ভয় হয়। শেখ হাসিনা এসব কথা বলে এবং পদ্মা সেতু নির্মাণের মাধ্যমে গোটা জাতিকে বিভক্ত করে ফেলেছেন। তারা নাকি একেবারে স্বর্গে চলে যাবে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় রিজভী এসব কথা বলেন। ১৬ জুন সংবাদপত্রের কালো দিবস উপলক্ষে ‘সংবাদপত্রের স্বাধীনতা ও আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক এই আলোচনা সভার আয়োজন করে বাংলাদেশ ইয়ুথ ফোরাম।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, আদতে গণমাধ্যমের ওপর গোয়েন্দা নজরদারি করা হচ্ছে। সরকারের বিভিন্ন সংস্থার লোকেরা পরিকল্পিতভাবে নানা ধরনের বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। বিএনপি বাক-স্বাধীনতার পক্ষে। বিএনপির শাসনামলে গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করা হয়েছে।

আওয়ামী লীগ সরকার মিডিয়াকে বিকৃতভাবে ব্যবহার করছে দাবি করে বিএনপির এই নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ আর গণমাধ্যমের স্বাধীনতা একসঙ্গে যায় না। এখন অনেক গণমাধ্যম দেখা যায় ঠিকই, কিন্তু সরকার সেগুলোকে ভয়ভীতির মাধ্যমে নিয়ন্ত্রণ করে। যার উদাহরণ, এখন পদ্মা সেতু নিয়ে সব গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশ করা হচ্ছে। এটাই তো ফ্যাসিবাদ।

খালেদা জিয়ার শাসনামলেও অসংখ্য ব্রিজ কালভার্ট নির্মাণ হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, তখন তো এমন ঢাক-ঢোল পেটানো হয়নি। এখন সেই আওয়ামী লীগ সরকার পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মাধ্যমে উদোর পিণ্ডি বুদোর ঘাড়ে চাপাতে চায়।

সরকার নিজের টাকায় পদ্মা সেতু নির্মাণ করেছে, এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা জানিয়ে রিজভী বলেন, চীনের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ নিয়ে পদ্মা সেতু করা হয়েছে। এই ঋণ আমাদের সবাইকে শোধ করতে হবে। যে টাকা খরচ হওয়ার কথা তা হয়নি। বরং বেশি টাকা খরচ করা হয়েছে। মূলত এসব টাকা বিদেশে পাচার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন

ঝালকাঠিতে কাভার্ড ভ্যান চাপায় দুজন নিহত

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: বরিশাল-খুলনা মহাসড়কের ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার নৈকাঠি নামক স্থানে পন্যবাহী কাভার্ড ভ্যানের চাপায় মোটর সাইকেলে থাকা দুজনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতরা হলেন, উপজেলার পুর্ব রাজাপুর...

সেরা পঠিত