সর্বশেষ সংবাদ

মৃত্যুর আগে নেতৃত্ব ঠিক করে গেছেন আল্লামা শফী, মানছেন না বাবুনগরীর অনুসারীরা

নজর২৪ ডেস্ক- মৃত্যুর আগে সংগঠনের নেতৃত্ব ঠিক করে গেছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের প্রয়াত আমির আল্লামা আহমদ শফী। তার নির্ধারণ করে যাওয়া নতুন কমিটিতে নিজে আমির এবং মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী স্বপদে বহাল থাকলেও সিনিয়র নায়েবে আমির হিসেবে নির্বাচিত করে গেছেন মাওলানা আহমদ দিদার কাসেমীকে। এছাড়া বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ পদেও পরিবর্তন আনা হয়। গত ১৩ আগস্ট আল্লামা শাহ আহমদ শফী স্বাক্ষরিত হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের অনুমোদিত কমিটির কপি প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। খবর- বাংলাদেশ প্রতিদিনের

 

জানা যায়, আল্লামা আহমদ শফী ও আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরীর মধ্যে বিগত কয়েক বছর ধরে সাংগঠনিক দূরত্ব তৈরি হলেও গত ৮ জুলাই দুই শীর্ষ নেতা আনুষ্ঠানিক বিবৃতি দিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার ঘোষণা দেন। ১৩ আগস্ট হেফাজতে ইসলামের ২১১ সদস্য বিশিষ্ট নতুন কমিটির স্বাক্ষর করেন আল্লামা আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী। নতুন কমিটিতে ১০ সদস্য বিশিষ্ট একটি উপদেষ্টা কমিটি নতুনভাবে যুক্ত করা হয়েছে।

 

নতুন কমিটিতে হেফাজতের আমির আল্লামা আহমদ শফী ও মহাসচিব আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী স্বপদে বহাল থাকলেও সিনিয়র নায়েবে আমির আল্লামা মহিবুল্লাহ বাবুনগরীর স্থালাভিষিক্ত হয়েছেন হাটহাজারী মাদ্রাসার সিনিয়র মুহাদ্দিস মাওলানা আহমেদ দিদার কাসেমী। এ ছাড়া মৃত্যুবরণ ও অন্যান্য কারণে কমিটি থেকে বাদ পড়েন কমবেশি ৩০ জন। কমিটিতে যুক্ত করা হয় নতুন প্রায় দেড়শ জনকে।

 

কমিটিতে নায়েবে আমির করা হয়েছে ৪২ জনকে। যুগ্ম মহাসচিব ও সহকারী যুগ্ম-মহাসচিব ১৫ জনকে। সাংগঠনিক ও সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে আটজন, অর্থ সম্পাদক ও সহকারী অর্থ-সম্পাদক আটজন, প্রচার ও সহকারী প্রচার সম্পাদক ১২ জন, আন্তর্জাতিক সম্পাদক ১৩ জন, সমাজ কল্যাণ ও সহ-সমাজ কল্যাণ সম্পাদক ১২ জন, শিক্ষা প্রশিক্ষণ সম্পাদক ছয়জন, আইন বিষয়ক সম্পাদক ও সহ-সম্পাদক ছয়জন, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক ও সহ-সম্পাদক ছয়জন, তথ্য গবেষণা সম্পাদক সাতজন, দফতর সম্পাদক ও সহ- দফতর সম্পাদক আটজন, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক ও সহকারী সম্পাদক আটজন, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক ও সহ-সম্পাদক আটজন, ত্রাণ ও পুনর্বাসন সম্পাদক ও সহ-সম্পাদক সাতজন এবং কার্যকরী সদস্য ২৯ জন।

 

এদিকে হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্বে আসা নিয়ে ইতিমধ্যে পাল্টাপাল্টি দুটি পক্ষ তৈরি হয়েছে। একপক্ষে রয়েছেন সংগঠনটির মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরীর অনুসারীরা। অন্যপক্ষে মরহুম আহমদ শফীর ছেলে আনাস মাদানীর অনুসারীরা।

 

মাদানীর অনুসারীদের দাবি, আল্লামা শফী নতুন কমিটির অনুমোদন দিয়ে গেছেন। এই কমিটি বাস্তবায়ন করা হবে। অন্যদিকে আল্লামা বাবুনগরীর অনুসারীরা এই দাবি প্রত্যাখ্যান করে বলছেন, এক মাসের মধ্যে কাউন্সিল ডেকে হেফাজতের নতুন আমির নির্বাচন করা হবে।

 

প্রায় তিন মাস ধরে দেশের অন্যতম প্রভাবশালী কওমি মাদ্রাসা হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম-এ অস্থিরতা চলছে। গেল জুলাই মাসে এই মাদ্রাসার সহকারী মহাপরিচালকের পদ থেকে জুনায়েদ বাবুনগরীকে সরিয়ে দেওয়া হয়। এরপর থেকেই হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক ও হেফাজত প্রধান আহমদ শফীর সন্তান আনাস মাদানীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করতে থাকেন বাবুনগরীর অনুসারীরা।

 

তাদের দাবি, আহমদ শফীকে ভুল বুঝিয়ে বাবুনগরীকে সহকারী মহাপরিচালকের পদ থেকে সরিয়েছেন আনাস মাদানী। এই দ্বন্দ্বের জেরে গত বুধবার মাদ্রাসায় ব্যাপক ছাত্রবিক্ষোভ ও ভাঙচুরের ঘটনা ঘটে। সেদিনই মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটিরি জরুরি সভা ডেকে আনাস মাদানীকে বহিষ্কার করা হয়। পরদিন বৃহস্পতিবার আহমদ শফী মাদ্রাসার মহাপরিচালকের পদ ছাড়েন। শুক্রবার মারা যান তিনি।

 

আনাস মাদানীর অনুসারীরা দাবি করছেন, হেফাজতের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা চিহ্নিত একটি গোষ্ঠী কূট কৌশলে আল্লামা আহমদ শফীর ছেলেকে মাদ্রাসা থেকে সরিয়ে দিয়েছে। তার বহিষ্কার অবৈধ।

 

এদিকে বাবুনগরীর অনুসারীরা দাবি করে আসছেন, সরকারঘনিষ্ঠ ব্যক্তিদের প্ররোচনায় হাটহাজারী মাদ্রাসায় বিশৃঙ্খলা তৈরির চেষ্টা করছেন আনাস মাদানী। তাদের দাবি অসুস্থতার কারণেই স্বেচ্ছায় মহাপরিচালকের পদ ছেড়ে দিয়েছিলেন আহমদ শফী।

 

উল্লেখ্য, দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পুরনো এবং বড় মাদ্রাসা হিসেবে পরিচিত হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদ্রাসা। এই মাদ্রাসার মহাপরিচালক হিসেবে কওমি মাদ্রাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়ে আসছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

 

দেশের কওমি মাদ্রাসাগুলোর শীর্ষ সংগঠন আল হাইয়াতুল উলিয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া, বেফাকুল মাদারিসের চেয়ারম্যান ছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। তিনি ২০১০ সালে হেফাজতে ইসলাম নামে একটি ধর্মীয় সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন। যে সংগঠনের আমির হিসেবে আমৃত্যু দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি।

 

বার্ধক্যজনিত কারণে অনেকদিন ধরে নানা শারীরিক সমস্যায় ভুগছিলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী। গত কয়েক বছরে তিনি বেশ কয়েকবার দেশ ও দেশের বাইরের হাসপাতালে চিকিৎসা নেন। সর্বশেষ বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তাকে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

 

শুক্রবার অবস্থার অবনতি হলে বিকেলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে ঢাকার আসগর আলী হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এই হাসপাতালেই সন্ধ্যায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন দেশের কওমি অঙ্গনের শীর্ষ আলেম আল্লামা শাহ আহমদ শফী।

আরও পড়ুন

তখন আমি এত পরিপক্ব ছিলাম না: তাসনিয়া ফারিণ

ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। বিনোদন জগতে অন্তর্জালের কল্যাণে এরই মধ্যে ব্যাপক পরিচিতি পেয়েছেন ফারিণ। মডেলিং দিয়ে শুরু করেন তিনি। পরে টিভি নাটকে...

যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে নতুন প্রেমের কথা স্বীকার করলেন সোহানা সাবা

লম্বা সময় ধরে সিঙ্গেল মাদার হিসেবেই সময় পার করছেন দুই পর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেত্রী সোহানা সাবা। ব্যক্তিগত জীবনে ভালোবেসে নির্মাতা মুরাদ পারভেজের সঙ্গে ঘর বেঁধেছিলেন...

সেরা পঠিত